৮ অক্টোবর, ২০২১

দুর্গা ও তাঁর পরিবার / ইন্দিরা মুখোপাধ্যায়

দুর্গার পটচিত্র- শিল্পী আয়েশা পটিদার, নয়াগ্রাম, মেদিনীপুর 


দুর্গা পুজোর অঞ্জলির মন্ত্রে আমরা বলি "সপরিবারায়ৈ"। এবার দেখা যাক কে কে আছেন মায়ের পরিবারে? 

প্রথমে দুর্গা নিজে মধ্যমণি। দুর্গা শব্দটির অর্থে আসা যাক ।

দুর্গা =  দুর্গ + আ =  দ্+উ+র্+গ্ +আ

দ এর অর্থ দৈত্যনাশ

উ এর অর্থ বিঘ্ননাশ

র এর অর্থ রোগনাশ

গ এর অর্থ পাপনাশ এবং

আ এর অর্থ ভয় ও শত্রুবিনাশ । (মহিষাসুরমর্দিনী, স্বামী প্রজ্ঞানানন্দ) 


দুর্গ শব্দের অর্থ দৈত্য, বাধাবিঘ্ন,  দুঃখশোক, নরকযন্ত্রণা, রোগব্যাধি… এহেন নানাবিধ অশুভকিছু আর “আ” অর্থটি বাংলাভাষায় নাশ করা বা বধ করা বোঝায় । সেই কারণে দুর্গা শব্দের অর্থ দাঁড়ায়  জীবের জীবন থেকে যা কিছু অশুভ শক্তির বিনাশ কারী দেবী শক্তি । নিজের নাম প্রসঙ্গে দেবী বলেছেন চন্ডীতে


“তত্রৈব চ বধিষ্যামি দুর্গমাখ্যং মহাসুরং

দুর্গা দেবীতি বিখ্যাতং তন্মে নাম ভবিষ্যতি” ।।


কিন্তু দুর্গা নাম এল কিভাবে? পুরাকালে দুর্গম নামক এক অত্যাচারী অসুর দেবতাদের পরাজিত করে বেদ শাস্ত্রকে হরণ করে । তার উদ্দেশ্য ছিল জীবজগতে ধর্মের বিনাশ ঘটানো । সমাজে এমন বিশৃঙ্খলা দেখে দেবতারা সমবেত ভাবে মহামায়ার শরণাপন্ন হন । কোনো অসুর যাতে ভবিষ্যতে এমন অনিষ্ট সাধন না করতে পারে তাই দেবী দেবতাদের আরাধনায় তুষ্ট হয়ে সমগ্র বেদ কে স্বীয় দেহে ধারণ করেন। বেদময়ী দেবীকে দেবগণ “দুর্গা” নামে ভূষিত করেন । দেবী পুরাণ মতে দুর্গা নাম স্মরণ করলেই ত্রিতাপ দুঃখ, জ্বালা যন্ত্রণা মুক্ত হয়  এবং এরূপে তিনি জীবের কল্যাণদায়িনী, রোগ-শোক বিনাশিনী রূপে জীবকে অশুভ শক্তির হাত থেকে উদ্ধার করেন । অথবা বলতে পারি মহাশক্তিকে লাভ করার দুর্গম পথকে যিনি সুগম করে দেন তিনিই দুর্গা ।


দুর্গা পুজোয় মহিষাসুরও দুর্গার সঙ্গে এক চালায় পূজিতা হন বৈকি। 


পুরাণে বর্ণিত আছে রম্ভাসুর ও গর্ভবতী এক মহিষীর মিলনে জন্ম হয়েছিল মহিষাসুরের। তার বৈশিষ্ট্য হল তার হাত-পা সব মানুষের মত কিন্তু মুখটি শিং সহ মহিষের মত । সে জন্মের পরেই স্বর্গরাজ্য লাভের আশায় তপস্যা শুরু করেছিল । বহুকাল কঠোর তপস্যার পর ভগবান ব্রহ্মা তুষ্ট হয়ে তাকে অমরত্ব ছাড়া যেকোনো  বরদান করতে সম্মত হলেন। এই বরে দেবতা, যক্ষ, রক্ষ, গন্ধর্বাদি কেউই তাকে হত্যা করতে পারবেনা  এবং কেবল কোনো অবলা নারীর হাতেই  সে ধ্বংস হবে এরূপটিই চাইলেন মহিষাসুর । তাই তুমুল যুদ্ধের পর মা দুর্গাই একমাত্র পেরেছিলেন একে বধ করতে। মহিষ তমোগুণের প্রতীক। মহিষাসুর মহিষ থেকে জাত বলে সে ভয়ংকর এবং যুদ্ধে দুর্গার সত্ত্বগুণের দ্বারা সেই তমোগুণের বিনাশ হয়।


লক্ষ্মী-সরস্বতী


কেউ বলেন এঁরা মায়ের দুই কন্যা । কেউ বলেন এঁরা মায়ের অন্য দুটি রূপ । মহাদেব নিজের দেহ থেকে সৃষ্টি করেছিলেন ঊমাকে এবং ঊমা পরে সৃষ্টি করেন লক্ষ্মী, সরস্বতী, দুর্গা এবং কালীকে। শ্রী শ্রী চন্ডীতে দুর্গাদেবীকেই মহালক্ষ্মী ও মহাসরস্বতী রূপে আখ্যা দেওয়া হয় । এই মহামায়া মাতৃশক্তির দশভুজা দুর্গা রূপটিই অসুর নিধন করেছিলেন । মহিষাসুরমর্দিণী দুর্গাপূজার সূত্রপাত ঘটে গুপ্তযুগে । বাঙালী কল্পনাপ্রবণ জাতি। সপরিবারে মা দুর্গাকে না দেখলে তাদের যে মন ভরেনা । তাই তো দুই শক্তি লক্ষ্মী ও সরস্বতীকে দুপাশে আমরা দেখি এবং মহানন্দে বরণ করি । লক্ষ্মী হলেন শ্রী বা বিষ্ণুপ্রিয়া বা নারায়ণী যিনি সৌভাগ্য, ঐশ্বর্য্য এবং সমৃদ্ধির প্রতীক আর সরস্বতী হলেন বাগদেবী, বিদ্যা-বুদ্ধির অধিষ্ঠাত্রী, জ্ঞানদায়িনী। অর্থাত এই দুই নারীশক্তি সকল শুভ, সৃজনশীল, গঠনমূলক ক্রিয়াকলাপের উত্স। তাই শুভ শক্তির প্রতীকও বটে ।

দুর্গাপুজো তো শুধুই দেবী দুর্গার পুজো নয়, এক গণ্ডা বাহন সমেত আরো চারজন দেবদেবী এমনকী মহিষাসুরও সমান গুরুত্ব সহকারে পুজো পেয়ে থাকে বাঙালির দুর্গাপুজোয়। 


পৌরাণিক আখ্যানে এমন অনেক কাহিনি রয়েছে, যা অনেকাংশে পরস্পরবিরোধীও বটে। যেমন, পুরাণ অনুসারে লক্ষ্মী দুর্গার মেয়ে নন, ভৃগুমুনির কন্যা। তাঁর মায়ের নাম খ্যাতি। স্বর্গলোকের অধিবাসিনী হলেও, দুর্বাসা মুনির অভিশাপে দেবী লক্ষ্মীর স্থান হয় ক্ষীরোদসাগরের তলদেশে। এরপর, অমৃতলাভের আশায় দেবাসুরের একত্রে সমুদ্রমন্থনে সাগর থেকে লক্ষ্মী আবির্ভূত হন এবং বিষ্ণুর স্ত্রী হিসেবে তিনি পরিচিত হন।

বাগদেবী সরস্বতী আবার, পুরাণ অনুসারে প্রজাপতি ব্রহ্মার কন্যা। এবং সেই কারণে সরস্বতীকে ব্রহ্মার শক্তি হিসেবেও দেখা হয়। আবার স্কন্দপুরাণ অনুযায়ী, দেবী সরস্বতী হলেন দেবাদিদেব মহাদেবের আপন বোন।

কিন্তু দুর্গার সঙ্গে এই দুই দেবী ঠিক কিভাবে জুড়ে গেলেন, তার অনেক ব্যাখা রয়েছে। শাক্তদের মতে, দুর্গা হলেন আদি পরাশক্তি, তিনি স্বয়ং শিবের-ও অগম্য। এই আদি পরাশক্তি দুর্গাই নিজেকে লক্ষ্মী ও সরস্বতীরূপে বিস্তৃত করেন, এবং এই তিন দেবী একত্রিত হয়ে ‘ত্রি-দেবী’ নামে পরিচিত হন। এই তিন দেবী আবার মানব চরিত্রের তিনটি গুণকে প্রকাশ করেন।সরস্বতী সত্ত্বগুণের, লক্ষ্মী রজোগুণের এবং দুর্গা স্বয়ং তমোগুণের প্রতীক। অর্থাৎ শাক্ত ঐতিহ্য অনুযায়ী, দেবী সরস্বতী ও লক্ষ্মী আসলে আদি পরাশক্তি দুর্গারই রূপভেদ। 

এ তো হল পুরাণের কথা। কিন্তু ঐতিহাসিকভাবে ঠিক কবে থেকে দেবী দুর্গার সঙ্গে জুড়ে গেলেন সরস্বতী ও লক্ষ্মী? আমাদের দেশে অনেক প্রাচীন দুর্গামন্দির রয়েছে যেখানে দেবী দুর্গারই প্রতিমা রয়েছে। বাকি দেবদেবীরা সেখানে অনুপস্থিত। মহীশূর থেকে সেন বংশীয় রাজারা যে দুর্গাপ্রতিমা এনে বাংলায় পুজো করা শুরু করেন, সেখানেও দেবী দুর্গার সঙ্গে লক্ষ্মী ও সরস্বতী অনুপস্থিত। কোনও কোনও ঐতিহাসিকের মতে, ত্রি-শক্তিকে একত্রিত করে পুজো করাটা বাংলায় প্রথম চালু করেন নদিয়ার রাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায়। বাংলায় তখন নবাবি আমলের শেষের দিক। ইংরেজদের সঙ্গে মিত্রতা বজায় রাখা হিন্দু রাজারা আর মুর্শিদাবাদের নবাবকে ভয় পাচ্ছেন না বিশেষ। এ রকমই একটা সময়ে, নতুন করে রাজা কৃষ্ণচন্দ্র দুর্গাপুজো শুরু করেন। সঙ্গে যুক্ত করে দেন লক্ষ্মী সরস্বতী কার্তিক ও গণেশকে। এই লোকাচার-ই এখন চলে আসছে, আমরা এই দেবদেবীদের দেবী দুর্গার সন্তান-সন্ততি বলে মান্যতা দিয়েছি মাত্র।

আবার কিছু কিছু সামাজিক গবেষকের মতে, প্রাচীন ভারতের হারিয়ে যাওয়া এক নদী হল সরস্বতী। তাঁদের মতে দেবী লক্ষ্মী হলেন শস্যের দেবী এবং তাঁর সঙ্গে দেবী সরস্বতীকে নদীরূপে একত্রে পুজো করার অর্থ হল নদীমাতৃক, কৃষিভিত্তিক দেশের অন্যতম সংস্কার। শস্যে ফসলে পরিপূর্ণ হওয়ার কামনায়।

তবে গুপ্তযুগ থেকেই অভ্যস্ত পরিবারকেন্দ্রিক বাঙালির দুধে-ভাতে কিম্বা মাছে-ভাতে থাকতে চাওয়ার   আকাঙ্ক্ষায় সপরিবারে মা দুর্গার বাৎসরিক এই পুজোর আবেদন সর্বজনীন। 


কার্তিক-গণেশ

মহাভারতে বলে গণেশ হলেন ত্রিকাল জ্ঞানী, সিদ্ধিদাতা, বিঘ্নেশ অর্থাত সকল বাধা বিঘ্ন নাশ কারী। আর পুরাণে তাঁর জন্মরহস্যেই আছে যে সকল দেবতার পূজার পূর্বে গণেশের পূজা অবশ্য কর্তব্য । তিনি পার্বতীর পুত্র । অভিশপ্ত তাই গজানন। মায়ের এরূপ দুর্বল পুত্রটি তো মায়ের সঙ্গেই পূজিত হবেন, এ আর এমন কী? গণেশের আগমনে পরিশ্রমে সিদ্ধিলাভ হবে মায়ের এবং সেখানে দুর্গাও পুত্রের গর্বে আনন্দিত হন। তাই তো আগমনী গানে আছে, "গিরি গণেশ আমার শুভকারী"।  


কার্তিকেয় হর-পার্বতীর আদরের দুলাল। কিন্তু শিবের ঔরসজাত এই পুত্রটি কে ছয় কৃত্তিকা প্রতিপালন কয়েছিলেন তাই সে কার্তিকেয়। সে দেব সেনাপতি। সে তরুণ সদৃশ, সুকুমার, শক্তিধর এবং সর্বসৈন্যের পুরোভাগে অবস্থান করে। তাই মাদুর্গার যুদ্ধযাত্রায় এমন শৌর্যবীর্য সম্পন্ন পুত্র সঙ্গী না হয়ে যায় কোথায় !

অতএব দেখা গেল লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ, এরা কেউ মা দুর্গার গর্ভের সন্তান নয়। 



কোন মন্তব্য নেই: