৩০ ডিসেম্বর, ২০১০

এখুনি চলে যাবে?


আবার চলল পাততাড়ি গুটিয়ে ৩৬৫দিনের পুরোণো একটা বছর । কেমন যেন লাগছে একটা । এই সে দিন আলাপ হল, কত কথা হল, কত ভাব-আড়ির টানাপোড়েন হ'ল তারপরেই শুরু হয়ে গেল ওর গোছগাছ । শীত পড়তে না পড়তেই কেবল যাই যাই ভাব । কত যেন চেনা হয়ে গেছিল ! আমার এই একরত্তি জীবন খানায় ৩৬৫রকম দিন দেখাল ।
কেড়ে নিল কত জীবন, খালি করল কত মায়ের কোল, ভেঙে দিল কত নদীর পাড় আবার দুহাত ভরে দিল কত কিছু ।কখনো ছুঁয়ে গেল মন, সিক্ত হল দুচোখের পাতা আনন্দের কান্নায়, কখনো সত্যিকারের কান্নায় দুচোখ ভরে গেল ।
বছরের মাঝামাঝি ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপে অক্টোপাস পলের বলিষ্ঠ ভবিষ্যত্‌বাণী আর ভুভুজেলায় কান ঝালাপালা হল । গাল্ফ উপসাগরে অয়েল লিক হল । শুরু হল আই-ফোন আর এন্ড্রয়েড ফোনের যুদ্ধ ; বিহারে নীতিশরাজের পুনরুত্থান এবং লালুর সমূলে পতন দেখলাম । ভারতীয় ক্রিকেটের স্বর্ণযুগ এল আর শচীনের রাজকীয় রেকর্ড হ'ল । জঙ্গলমহলে মাওপ্রকোপ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেল । যদিও রাজনীতির টানাহ্যাঁচড়াতে আমার মত নিরুত্তাপ নাগরিকের কোনো হেলদোল নেই । তবুও দেখলাম বুদ্ধবাবুদের দাদাগিরি আর মমতাদিদির দিদিয়ানা ; উইকিলিক্সের হাটে হাঁড়িভাঙা থেকে টু'জি স্ক্যামের লবিবাজি , কমনওয়েলথ-গেমসের পুকুর চুরি থেকে উইমেন এথেলিটসদের জয়জয়াকার আর নিত্য নৈমিত্তিক বাজার দরের "onionism" তো আছেই ।
কিন্তু আমার কি হ'? এই একশোকোটির মধ্যে আমি এক কীটস্য কীট । কোলকাতা-খড়গপুরে শাটল্‌ ককের মত যাত্রা শুরু করলাম । দেখলাম যত্ন করে স্বপ্ন নিয়ে ছবি "ইনসেপশান" আর সাথে "মাই নেম ইজ খান" মোটের ওপর ভালোই বলা চলে । "ইশকিঁয়া" আর "দাবাং" দেখে ঠিক করলাম আর হিন্দী ছবি দেখব না । সত্যি সত্যি মুগ্ধ হলাম অপর্ণা সেনের "জাপানিজ ওয়াইফ" দেখে ; আর মন্দ লাগল না "আবহমান"
। বছরের একদম শেষে "ট্রন" দেখে বেশ লাগল |ভালো দুখানা ব‌ই পড়ালে তুমি এবছরে । একটা হল রাজশেখর বসুর অনূদিত "মেঘদূত" আর একটা প্রতিভা বসুর মহাভারতের সম্পূর্ন অন্যরকম ব্যাখ্যা । মেঘদূত নিয়ে এখনকার আঙ্গিকে
লিখে ফেললাম রম্যরচনা "মেঘ-মেল" । সেটিও ছাপা হয়ে বেরুলো সূদুর আটল্যান্টার পূজো ম্যাগাজিন "অঞ্জলি" তে । আরো কত কথা বলি ! আসামের করিমগঞ্জের একটি দৈনিক পত্রিকায় আমার লেখা ছোট গল্প "প্ল্যান-চ্যাট" আর "অথ্-মৃচ্ছকটিকম্‌" খুব হিট হয়েছে জানো ? সকলে পড়ে বলেছে "বেশ অন্যস্বাদের ছোট গল্প হয়েছে", "খাসা লিখেছ হে" ইত্যাদি ইত্যাদি । এদ্দিনে কবিতা, ভ্রমণ কাহিনী ছেড়ে আমাকে গল্প লেখায় পেয়ে বসেছে ।
কালবোশেখির একটা বিকেলে রবীন্দ্রনাথের গান শুনিয়ে "নয়নতারা" সোজা পৌঁছে গেল এক্কেবারে প্রিন্ট মিডিয়ার দরজায় ! তারপর? তারপরই নয়নতারার প্রথম এলবাম "চলো রে আলোকে" বেরুলো সেই বর্ষাকালে গো ! আর তাও আবার আমারই সবচেয়ে প্রিয় টিভি চ্যানেলে রিলিজ হয়ে গেল ! তোমার জন্য ভুটান দেখে এসেছি গো এই বার গরমকালে । কত নদী আর কত বিভিন্নতার মাঝে ভুটানের প্রকৃতিতে আপ্লুত হয়ে জীবনের প্রথম ভ্রমণকাহিনী লিখেছিলাম প্রাণ দিয়ে , মন ঢেলে দিয়ে । আবার প্রিন্টহয়েও বেরুলো তা । তারপর ঠিক করলাম নাঃ তোমার সাথে আর ঝগড়া নয় ! নিউঅর্লিন্সে মধুচন্দ্রিমা হয়েছিল বিগত দু দশক আগে । কিছু কাহিনী ছিল লিপিবদ্ধ করা । তা আবার পাঠালাম প্রিন্ট মিডিয়ার দরবারে । বিদ্ধংসী ক্যাটরিনা ঝড়ের ৫ বছর পূর্তি আর নিউঅর্লিন্সের সবকিছু নিয়ে আবার তা ছেপে বেরুলো । ইতিমধ্যে সুদূর নর্থ-ইস্টের দুই ডিজিটাল বন্ধু চেয়ে পাঠালো কবিতা আর কবিতা । তাও ছেপে বেরুলো ।
হঠাত আমার মত নগণ্য গৃহবধূ আমন্ত্রণ পেল তিন তিন বার একটা টেলিভিশন চ্যানেল থেকে, একবার বন্‌ধ্‌ একবার হোমমেকার আর একবার সোশ্যাল-নেট ওয়ার্কিং নিয়ে শুধু কথা বলার সুযোগ এল .... লাইভ একটা ঘন্টা আমি অনর্গল কথা বলে গেলাম । তাও তোমার জন্যে ... শুধু তোমার জন্যে । এর মধ্যে একটা প্রিন্ট ম্যাগাজিনে কবিতাও বেরুলো । বন্ধুরা বলল তোমার বেষ্পতি তুঙ্গে এখন ! দুর ....আমার কি কোয়ালিটি ছিল ?আমি তো এক সাধারণ গৃহবধূ ।
আবার গেল বর্ষা । কাশ ফুলের বনে হাঁটছিলাম । শিউলি কুড়িয়ে , শিশির ভেজা পায়ে চুপিচুপি গাইছিলাম মনে মনে, গুন গুন করে ... মহালয়ার দিনে টিভির পর্দায় গান গাইবার সুযোগ এল । শ্যামপুকুর বাটিতে মায়ের বাড়িতে মহিষাসুর মর্দিনির গান আর স্তোত্র দিয়ে ভরিয়ে দিল "নয়নতারা" একটি ঘন্টা; আর জানো তো ঠিক তারপরই শ্যামপুকুর বাটি অধিগ্রহণ করল বেলুড়মঠ । আর গান গাওয়া হবে না এখানে কখনো ।এও ছিল কপালে আমাদের? স্বামীজি যেখানে বসে স্বয়ং গান
শুনিয়েছিলেন ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণকে সেখানে সুযোগ হয়ে গেল গান করার ! তাও তোমার জন্য । ভাবি এমনি করেই যায় যদি দিন যাক না ! পূজোর পর "বীরভূমের পাঁচ সতীপিঠ" নিয়ে আবার ফিরে এলাম লেখায় । ভাইফোঁটার দিন একমাত্র ভাইয়ের জন্য রান্নাবান্না নিয়ে ব্যস্ত আছি তখুনি খবরের কাগজে ভাইফোঁটার জন্য ছ'খানা রেসিপি লেখার আমন্ত্রণ এল । আমি সেদিন ল্যাজেগোবরে । ভাইয়ের জন্য রাঁধব না কাগজের জন্য টাইপ করব, ছবি তুলে পাঠাব । মনে মনে বললাম এই তো চাই আমি " সারাদিন অকুপায়েড " নয়ত আবার শুরু হয়ে যাবে আমার মন খারাপের পার্টির তোড়জোড় ।
ইতিমধ্যে ডিজিটাল পরিচিতি হয়েছে আমার অনেকটাই । এতদিন স্বপ্ন দেখতাম শুধু | এখন স্বপ্ন সত্যি করেছ তুমি ।শীতের রোদ্দুরে পিঠ দিয়ে আর বসন্তের মাতাল হাওয়া গায়ে মাখতে মাখতে আমার মত সাধারণ কলমচি'র কর্ণিকা চলতেই থাকল তোমার জন্য সেই ইচ্ছেমতীর ধারে, খোয়াব দেখতে দেখতে আর কচিকাঁচাদের দিয়ালায় যোগ দিতে দিতে| চললাম অলস দুপুরগুলোতে অর্কুটের আঙিনায় , কবিতার উঠোনে হোঁচট খেতে খেতে আর গুগ্‌লদ্বীপের আশপাশে । মাঝরাতে ঘুম ভাঙলে দেখি সোনার চুড়ি খোলা আমার । ভাতের জল চাপিয়ে চাল ছাড়তে ভুলে গেলাম । রোজ রোজ দুধ উথলে পড়ে গেল ! আমার কর্ণিকা থেমে র‌ইল না কো । গরমের বিকেলে গা ধুয়ে এসে গান আর রাতে ঘুমের আগে বডিলোশনের মত লেখা আমাকে পেয়ে বসেছে । আমার পৃথিবী স্বপ্নময় ... আমার বাস্তব গদ্যময়। আমি খুব লোকময়ী ; সেই আমার কুঁড়ি-কিশলয় থেকে । কিন্তু আমি অন্যের মনের তল পাইনা । কি জানি বুঝতে পারিনা বোধ হয় । এ ব্যাপারে আমার বিশেষ জ্ঞান গম্যি নেই । আজ পৃথিবীর মানুষগুলোকে কেমন যেন অচেনা লাগে, বড্ড অচেনা , আবহাওয়াটা বড্ড গুমোট লাগে । দম বন্ধ হয়ে আসে । কি জানি তুমি এত দিলে বলেই কি আস্তে আস্তে সকলে দূরে সরে
যাচ্ছে । হয়ত তাই , হয়ত বা নয় । এবারে আমি কিন্তু নিজেকে ঠিক বদলে নেব দেখ ...এই কথা দিলাম !
জানো আবার যেই শীত পড়ল আমার মন খারাপ শুরু হয়ে গেল তুমি চলে যাবে বলে । এই নিয়ে মন খারাপ করে বসে আছি ঠিক সেই সময় আবার ডাক এল টিভিতে রান্না করার জন্যে । বিনিপয়সায় নিজস্ব রেসিপি সকলের সাথে শেয়ার করব আর অনেকে তা দেখবে কে না চায় ! পাড়ার কেষ্ট-বিষ্টু থেকে শ্বশুরবাড়ি-বাপেরবাড়িতে এক্কেবারে হৈ হৈ ! আবার তাদের আমাকে ভাল লেগে গেল । ডাক পড়ল আধ ঘন্টা লাইভ কথা বলার জন্যে । তুমি হয়ত বিশ্বাস করবে না তবুও বলছি, আমার যে এ সব ভাল লাগে না তা নয় কিন্তু আমাকে কেন এদের ভালো লাগে তা বুঝে উঠতে পারলাম না । আমার সবথেকে যারা প্রিয় তাদের নিয়ে ঘুরতে গেছিলাম সূর্যাস্ত থেকে সূর্যোদয়ের শংকরপুর দেখব বলে । ও মা ! হঠাত যেন সি বিচথেকে উঠে আসার সময় ভূতে ঠেলা মেরে ফেলে দিল ভূত চতুর্দশীর দিনই । আর আমার দু' হাঁটু চিরকালের মত বোধ হয় অকেজো হয়ে গেছে মনে হল । ধীরে ধীরে কাটল ট্র্যমা কিন্তু দুটো হাঁটুতেই সারাজীবনের মত একটা অস্বস্তি থেকে গেল জানালেন ডাক্তার বাবু আর তার রিপোর্ট । তাই তো তোমাকে আর ভালো লাগছিল না ... তুমি বড্ড নজর দাও আমাকে । আমি যে এত কিছু করি তা তোমার ভাল্লাগেনা বুঝলাম | তা বাবা আগে বললেই পারতে । সাবধান হতাম । সেই খোঁড়া পা নিয়েই গেলাম শীতের গর্জিয়াস গোয়া দেখতে । আঠাশ বছর বাদে গোয়া গেলাম । অনেক বদলেছে সে । কেমন যেন অচেনা মানুষের ভীড়ে চেনা গোয়াকে আরো নতুন করে পেলাম ।
জানো তো নিশ্চয়ই, সকলে বলছে পরিবর্তনের হাওয়ার কথা; আচ্ছা বলত মানুষের পরিবর্তন হবে না ? আমি বাপু ডান-বাম কোনো রাজনীতিই ভাল বুঝি না । পরিবর্তনে আমার কি ভালো হবে তাও জানিনা | আদৌ পরিবর্তন হবে কি না তাও জানিনা কিন্তু আশপাশের মানুষকে চিনতে শেখার জন্য আমার কি কোনো পরিবর্তন হবে না ?
ভাগ্যিস তোমার খোলা হাওয়া ছিল তাই রক্ষে ! গতবছরের কত না বলা কথারা আজ বলে ফেললাম তোমায় আপন ভেবে । আবার তোমার নয়নজুলি বেয়ে বেয়ে আমার শব্দমালারা সাঁতরে চলে আসবে আমার ডান হাতের মুঠোয় । আর সুর এসে ভর করবে আমার ওপরে । আমি নেই-আঁকড়ের মত শব্দমালা আর সুর নিয়ে আবার ৩৬৫ দিন ধরে জাগলিং করে যাব তোমায় সাক্ষী করে ।
যতবার ভেবেছি তুলাযন্ত্রের একপাল্লায় আমার গান আর একটাতে আমার লেখা নিয়ে বেঁচে থাকব ততবার অনেক বাধা এসেছে । কিছুতেই আর ব্যালেন্স হল না । একে ভালোবাসলে অন্যটির হিংসে হয় ! কি জ্বালা ! তাই এবার তোমাকে বলব "আমাকে আমার মত থাকতে দাও..." আমি নিজের জীবনটাকে নিজের মত করে গুছিয়ে নি...শুধু যদি তুমি পাশে থাকো ! তোমার নতুন নৌকার পুরোণো যাত্রীটিকে ভুলোনা যেন । 
 

২২ ডিসেম্বর, ২০১০

অথ মৃচ্ছকটিকম্‌ -(ছোট গল্প)


রাত প্রায় দুটো। তিলোত্তমা মহানগরী ঢলে পড়েছে গভীর নিদ্রায়।  দ্বিতীয় হুগলী ব্রিজের ওপরে দুয়েকটা গাড়ি নিঃসাড়ে পার হচ্ছে গঙ্গা। গিয়ে ঢুকছে প্রশস্ত রাজপথে। রাস্তার দুপাশে  স্বমহিমায় জ্বলজ্বল করছে স্ট্রীট ল্যাম্প।    আকাশে প্রতিপক্ষের একসূতো চাঁদ। ঘোর অন্ধকারে চুঁইয়ে পড়ছে পথবাতির আলো। ছুটে চলেছে ইন্দ্রসেনা । পরণে নীল শিফন শাড়ি,  জমিতে হলদে বড়বড় ফুলের ছাপ  । একহাতে বেদের মেয়ের মত চুড়ির গোছা আর একহাত খালি । ফাইভস্টার হোটেলে কাজ করে ইন্দ্রসেনা। রিসেপশানিস্ট হয়ে ঢুকেছে; আজ তার এত দেরীর কারণ দেবদত্ত | দুজনার চলার পথে দু একবার দেখা হয়নি যে তা নয় কিন্তু আজকের আলাপ একটু অন্যরকম । গভীর তাত্পর্যপূর্ণ। অন্তত ইন্দ্রসেনার কাছে। আজ হোটেলে একটা বিরাট ককটেল পার্টি ছিল সেখানে দেবদত্তের সাথে একাধিকবার তার ইঙ্গিতপূর্ণ দৃষ্টিবিনিময় হয়েছে আর তারপর সব কিছু ওলটপালট । পার্টিতে উপস্থিত কেউ কেউ তাদের ঘনিষ্ঠতাও লক্ষ্যও করেছে।   পার্টিটা ছিল সোশাল নেটওয়ার্কিং সাইটদের উদ্যোগে এক বিরাট ফেস টু ফেস কমিউনিকেশন পার্টি,  বছর পাঁচেক ধরে সোশালনেটে বন্ধুত্বের দায়,সামাজিক দায়বদ্ধতা যারা এড়াতে পারেনি তাদের একটা বিশাল সমাবেশ হযেছিল এই হোটেলে আজ সন্ধ্যায়। দেবদত্ত সেই পার্টির প্রধান অর্গানাইজার | গুগল, ইয়াহু,  এই সব কম্পানির কর্ণধাররা প্রচুর  বিজ্ঞাপন দিয়েছে। একা দেবদত্তর ফ্রেন্ডলিস্ট থেকেই  হাজির হয়েছে প্রায় একশ জন, ইন্দ্রসেনাও আছে এদের মধ্যে।   আর দেবদত্তর বন্ধুর বন্ধুরাও আছে, আছে কিছু কমন বন্ধু যেমন ইন্দ্রসেনা।  ককটেল স্পনসর করেছে ট্যুইটার গ্রুপ আর ডিনার খাইয়েছে গুগলবাজ । লাকি ড্রও ছিল সেই সাথে,  ছিল সোনি ল্যাপটপ জেতার সুযোগ ।  
পাঁচবছর ধরে নেটালাপে ডিজিটাল ঘনিষ্ঠতা চলার পর আজ ছিল লক্ষ্যভেদের পার্টি, ইন্দ্রসেনা তাই ভাবে মনে মনে  ।  খাস কোলকাতার কেতার হোটেলের রিসেপশানিস্ট বলে কথা । ইন্দ্রসেনার রূপ যেন উথলে উঠেছিল সেই সন্ধ্যায় ।  যারা অর্কুট, ফেসবুক, টুইটারে নিজের পরিচয় গোপন করেনি তারা একে অপরকে দেখেই চিনেছে , উদ্বেলিত হয়ে কুশল বিনিময় করেছে, আনন্দের আতিশয্যে আটখানা হয়ে পড়েছে।
সারা সন্ধ্যা ধরে হোটেলের স্ফটিক কক্ষে চলেছে একে ওকে কোণ ঠাসাঠাসি, পা চাটাচাটি, ল্যাং মারামারি,  হিং লাগানো কথার মারপ্যাঁচ, পিঠচাপড়ানি ; কেউ  ফোকটে আকন্ঠ পানের ফোয়ারা ছুটিয়ে ঘুম দিয়েছে সোফায়, কেউ আদেখলার মত স্ন্যাক্স খেয়েই চলেছে  দফায় দফায় । ইন্দ্রসেনা বুদ্ধিমতী মেয়ে কিন্তু সরল ; ও লোককে বিশ্বাস করে ফেলেছে ।   দেবদত্ত আগে থেকেই বলে রেখেছিল তাকে যে, রাতে বাড়ি পৌঁছে দেবে । 
ইন্দ্রসেনা মনে মনে বলে "সদাশিব না? ওমা এত একটা বুড়ো"? প্রত্যয় না? এতো এক্কেবারে বাচ্চা ছেলে, ওমা অরূন্ধতী না? শুধু ছবি বদলায় আর কোনো কাজ নেই এর; আরে অনীশদা না? ইনি এত গম্ভীর? না দেখলে কে বলবে? ইনি সেই কবি না কি যেন নাম! শৌনক সেন মনে পড়েছে ; ইনি সেই শ্রুতিনাটক করেন, প্রায়ই এনার প্রোমো দেখি নতুন অনুষ্ঠানের,  এদের মধ্যে দেবদত্তর সাথে ইন্দ্রসেনার একটু বেশি ঘনিষ্ঠতা হয়েছে এই চার-পাঁচ বছরে। 
সকলে যেন গিলছে ইন্দ্রসেনাকে, যেন কোনোদিন মেয়ে দেখেনি এরা; কি নির্লজ্জ রে বাবা ! কি গায়ে পড়া । আরে সেই লোকটা না ? সেই লাস্ট ইয়ারে একে তো কমিউনিটি থেকে ব্যান করেছিল ফেসবুক । কি যেন অশ্লীল সব কমেন্ট করত বলে, একবার অর্কুটে তাড়া করেছিল ইন্দ্রসেনাকে,  তারপর আর ইন্দ্রসেনা অর্কুটে ছবি দিত না নিজের, নয় ফুল, নয় পাখি, নয় গাছ এভাবেই চলত।  "লোকটার কি নাম যেন দেব"? ইন্দ্রসেনা বলল | দেবদত্ত বলল  নাম তো আসল নয়, অমন নাম কি হয় কারো?  অর্কুটে অর্বাচীন, ফেসবুকে ফর্নাথিং, টুইটারে টেরিবল, আর গুগলবাজে  গ্যাঁড়াকল নাম এনার । নামকরণের বলিষ্ঠতা দেখে মনে হয় খুব ক্রিয়েটিভ পার্সন । আসলে হোপফুলি হোপলেস ইনি ।    ইন্দ্রসেনা রাগে ক্ষোভে ফেটে পড়ছিল ভেতরে ভেতরে । রাত বেড়ে চলেছে, কথার শেষ নেই, এক‌ই  মানুষজন পরিবৃত হয়ে একনাগাড়ে পার্টি চলছে তো চলছে, যেন ডিজিটাল জি-টক আজ  চাক্ষুষতায় পূর্নতা পেয়েছে। কেউ লগ আউট করছেনা, ইন্দ্রসেনা খুব ট্যাক্টফুলি নিজেকে সংযত রাখছে।দেবদত্তকে ইন্দ্রসেনা দেখতে পায় আর এক মহিলার সাথে খুব ঘনিষ্ঠভাবে  । ইন্দ্রসেনা কি করবে বুঝতে পারেনা একবার সামনাসামনি গিয়ে দাঁড়ায় |
এতদিন সে ভেবে ছিল দেবদত্ত বুঝি বা তার একার সম্পত্তি;  অন্তত অর্কুট, ফেসবুক ট্যুইটার তাই বলে । কিন্তু এই মহিলা কে ? এনাকে তো কখনো দেবদত্তের বন্ধু তালিকায় দেখিনি । মনে মনে ভাবল ইন্দ্রসেনা । তাহলে কি অন্য কোনো ছদ্ম প্রোফাইলে আছেন এই মহিলা ?   ছি: দেবদত্ত,  তুমি আমাকে শেষে ঠকালে ? এতদিন আমার সাথে অভিনয় করলে প্রেমের ? আর পাঁচটা বন্ধুর থেকে আমি তোমাকে আলাদা ভাবতাম । আমি তোমার কথা বাড়িতে বলেছি । বাবা মা কে বিয়ের সম্বন্ধ করতে বাধা দিয়েছি ।  হঠাত হোটেলের সেই স্ফটিক কক্ষ যেন দমটা বন্ধ করে দিচ্ছিল ইন্দ্রসেনার  । নিজেকে মনে মনে বলল সে " এই জন্য অজ্ঞাতকুলশীলকে কখনো প্রশ্রয় দিতে নেই অন্তত প্রেম-বিয়ে এই সবের ব্যাপারে"   তার দাদা তাকে অনেক বার বলেছিল এ কথা । সাবধানও করেছিল । কিন্তু ঐ যে রোজকারের এই ইন্টারএকশান,  নিয়মিত চ্যাটালাপ, স্ক্র্যাপ তাদের ঘনিষ্ঠতা এতটাই বাড়িয়ে দিয়েছিল যে সে মনে প্রাণে ভালবেসে ফেলেছিল দেবদত্তকে ।

এদিকে দেবদত্তের ভরসায় সে এসেছে এখানে । সে ভাবতেই পারেনি কস্মিনকালে যে পুরো পার্টিটা তার বোনা স্বপ্নের জালকে কুটিকুটি করে ছিঁড়ে দেবে দেবদত্ত । এক চরম অস্বস্তির মধ্যে পড়ল সে ।  একে একে সব অচেনা পুরুষগুলো নেশা করে তার কাছে এসে দাঁড়াচ্ছে, কেউ ধরছে হাত, কেউ অশালীন ইঙ্গিত করছে ।ইন্দ্রসেনা একবার দেবদত্তকে ইশারা করে ডাকতে গিয়েও সরে এল । কিছু পরে দেবদত্তই নিজে এগিয়ে এসে তাকে নিয়ে গেল একজনের কাছে,"এই যে এই আমাদের মিস ইন্দ্রসেনা রয় আলাপ করুন এর সাথে " আর "ইনি মিস্টার ডিসুজা, ট্যান্ডেলিং গ্রুপ অফ হোটেলস এর মালিক"  বলে আলাপ করিয়ে দিল ইন্দ্রসেনার সাথে । ভদ্রলোকের ঘোলাটে চোখ আর চাকচিক্যময় পোশাক দেখে ইন্দ্রসেনার কেমন যেন বাধো বাধো ঠেকল । এদিকে দেবদত্ত আলাপ করিয়ে দিয়েই পালাল সেখান থেকে । চরম অস্বস্তির মধ্যে পড়ল ইন্দ্রসেনা । ভদ্রলোক তার খুব ঘনিষ্ঠ হয়ে জিগেস করল " আপনি যদি কিছু মনে না করেন তবে বলি আপনার মত একজনকে আমার গোয়ার রেসর্টে রিসেপশানে দেখলে খুব খুশি হব ।অশালীন ইঙ্গিত করল হোটেলের ঘরগুলি দেখিয়ে, বলল How much would you expect as your salary?" ইন্দ্রসেনা চকিতে বলল না, না আমার ফ্যামিলি এখানে, আমি কলকাতা ছেড়ে কোথাও যেতে পারব না" ভদ্রলোক তখন চেঁচিয়ে উঠল  "কি যাবেন না মানে ? আমাকে তো দেবদত্ত কথা দিয়েছে" আর দেবদত্তকে আমি তাই আমার বন্ধুর কোম্পানিতে ডাবল স্যালারিতে  চাকরি দিলাম । এই মাসের শুরুতেই সে মিডল‌-ইষ্ট চলে যাচ্ছে, নতুন কোম্পানি জয়েন করছে । ইন্দ্রসেনা বলল " কি মুশকিল আমি তো এসবের কিছুই জানিনা "    লোকটা তার সেলফোনের কললিস্ট থেকে দেবদত্তকে ফোন ঘোরাতে লাগল । 
এদিকে দেবদত্ত ততক্ষণে হোটেল থেকে বেরিয়ে গাড়িতে ষ্টার্ট দিয়েছে  । তার মোবাইলটি অফও করেছে মনে করে । ফোন সুইচ অফ দেখে লোকটা হোটেলের ক্রিষ্টাল রুমের দিকে এগোল  দেবদত্তকে খুঁজতে ; ততক্ষণে  ইন্দ্রসেনা ছুটে সেই ঘর থেকে বেরিয়ে টয়লেটে গিয়ে মুখে চোখে ঠান্ডা জল দিয়ে হোটেলের বাইরে পা রেখেছে ।       বেরিয়ে পড়েছে  সেই অন্ধকার রাজপথে । আর কেবল মনে হতে লাগল মৃচ্ছকটিকমের নায়িকা বসন্তসেনার কথা । মনে মনে নিজেকে ধিক্কার দিতে লাগল, "চুলোয় যাক সোশালাইট করা,   হায়রে সমাজ, এখনো মানুষ হলনা তোমাদের সেই চারুদত্ত, ভগদত্তেরা" !!!