১৯ অক্টোবর, ২০১৭

দীপাণ্বিতার স্মৃতিকণা



মার স্মৃতিতে ছোটবেলায় কালীপুজোর প্রদোষে দীপাণ্বিতা লক্ষ্মীপুজোর স্মৃতি অমলিন। সব ঘটিবাড়িতেই এই পুজো হবার কথা। আমাদের কোজাগরী পুজো নেই তাই এই পুজোয় মহা ধুম হত। সকাল থেকেই সাজো সাজো রব পড়ে যেত বাড়িতে। মা, ঠাম্মা উপোস থাকতেন। আর সারাদিন ধরে বিকেলের পুজোর জোগাড় যন্ত্র চলত। আগেরদিন বাজার হয়ে যেত। নারকোল নাড়ু মা আগের দিন করে রাখতেন। ঠাম্মা বসে নাড় পাকাতেন। আখের গুড়ের গন্ধে বাড়ি ঘর ম ম করত। স্কুল ছুটি থাকায় পড়াশুনো শিকেয় তখন। বারান্দার গ্রিলে মোমবাতি, ছাদের প্যারাপেটে মোমবাতি জ্বালানো নিয়ে কত এক্সপেরিমেন্ট চলত আমার আর ভাইয়ের। পুজোর দিন সকালে বাগানের ফুল তোলা ছিল আমার কাজ। একটাও কুঁড়ি না ছিঁড়ে শিউলি, জবা অপরাজিতা ফুল, স্থলপদ্ম তুলে সাজি ভরে আনতাম। ভাই ব্যস্ত তার বাজী নিয়ে। বাজি রোদে শুকনো, কড়মড়ে করে তবে তার শান্তি। আর ক্যাপ ফাটানো নিয়ে তার কত উত্তেজনা। একবার বম্বে থেকে বাবা তার জন্য নিয়ে এলেন স্পেশ্যাল এক ক্যাপ ফাটানোর স্টীলের বন্দুক। তার সঙ্গে আবার কিছু ক্যাপ ফ্রি ছিল। সেই দেখে আমিও উত্তেজিত। যদিও হাতে খেলনা বন্দুক দেওয়া মায়ের নাপসন্দ তবুও ভাইয়ের ইচ্ছে কে বেশ ভালোই প্রশ্রয় দেওয়া হত বাড়িতে।আমাদের বাড়ীতে পুত্র সন্তান ছোট থেকেই বেশ অগ্রাধিকার পায়, দেখেছি এমনটি। কিন্তু আমি
আমার ন'বছরের ভাকে এতটাই স্নেহ করতাম যে তার আনন্দে আমার আনন্দ দ্বিগুণ হয়ে যেত। ভাবতাম এটাই যেন হওয়া উচিত। ও তো কত ছোট আমার থেকে। সেই ফুল দিয়ে মা দীপাণ্বিতা লক্ষ্মীর জন্য মালা গাঁথতেন দেখবার মত। এবার পুজোর ভোগ রাঁধার প্রস্তুতি। বড় হয়ে মা আমাকে বঁটিতে ভোগের ভাজাগুলি কাটতে বলতেন। পাঁচভাজার মধ্যে আলু, পটল, ফুলকপি, বেগুণ, আর রাঙা আলু ভাজা। মা ভাগ করে দিয়ে ভোগের খিচুড়ি বসাতেন। আমি মন দিয়ে ভাজা কাটতাম। ভাই ঠিক সময়ে এসে আমাকে বলত দিদি, বেশী করে গোল গোল চাকা চাকা আলুভাজা কেটে দে প্লিজ। মা যা আলু দিয়েছে তার প্রায় দ্বিগুণ পরিমাণ আলু কাটিয়ে নিত, যাতে না কম পড়ে। এবার মায়ের সেই আলুভাজতে প্রাণান্ত হত। নিয়মিত বাড়িতে এমন আলুভাজা হত না। তাই বুঝি ওর এমন আসক্তি ছিল ঐ স্পেশ্যাল আলুভাজায়। মা ভোগের জন্য সোনামুগ ডাল আর গোবিন্দভোগ চালের অপূর্ব খিচুড়ি, ঘিভাত, ফুলকপির ডালনা, রাঁধতেন। এরপর সুজির পায়েস বসত পেতলের কড়ায়। তাতে কাজু, কিশমিশ দিয়ে গার্ণিশ করার দায়িত্ব পড়ত আমার ওপরে। আর হত একটা স্পেশ্যাল চাটনী। এটা সারাবছরে আর হত না বাড়িতে। পালংশাক ভাজা হয়ে যেত আগেভাগে। সদ্য ওঠা মূলো, রাঙা আলু, বেগুণ আর মটর ডালের ছোট্ট ছোট্ট বড়ি দিয়ে সেই চাটনী।সরষে, ফোড়ন আর নামানোর ঠিক আগে একাটু ময়দা গোলা আরা কাঁচা তেঁতুলের ক্বাথ। সে যে কি অপূর্ব রসায়ন!
সব শেষে চাপত ছোট্ট ছোট্ট গোল গোল ঘিয়ের লুচির খোলা। সে গন্ধ আর পেতুম না সারা বছর।বছরের একটি দিনেই লুচির ময়দা কি করে শক্তপোক্ত করে, কম জল দিয়ে মাখতে হয় শিখে গেছিলাম সারা জীবনের মত। ভাই পাশ থেকে এসে বলত দিদি, বেশী করে ময়দা টা মেখেছিস তো? তারপর পাহাড় প্রমাণ সেই লুচি ভাজতে উপোসী মা হিমশিম খেতেন।
ভোগ রান্নার সময় মা একটিও কথা বলতেন না। পাছে ভোগের মধ্যে থুতু পড়ে যায়।
এবার মা লক্ষ্মী পাততেন। ধানের মধ্যে লক্ষ্মী আর তাঁর পেঁচার আসন গ্রহণ সুচারু আলপনা দেওয়া জল চৌকি তে। ঠাকুমার লক্ষ্মীর হাঁড়ি পেয়েছিলেন মা। সেই ধান প্রতিবছরে বদলানো হত পৌষ মাসে নতুন ধান উঠলে। এবার লক্ষ্মীর পা, ধানের শীষ এঁকে মা পিটুলি গোলা দিয়ে সারা বাড়ি আলপনা দিতেনা। লক্ষ্মীর কুনকে ভর্তি ধান আর ধান, পাশে সিঁদুর কৌটোখানি। মা লক্ষ্মীর ছবিতে পুজোই আমাদের রীতি।
লক্ষী, নারায়ণ আর ধনপতি কুবেরের পুজো হয় । পিটুলি বাটা দিয়ে মা তাঁর নিপুণ হাতে তৈরী করেন তিন পুতুল.... সিঁদুর দিয়ে পিটুলির তৈরী লালরঙের লক্ষ্মী পুতুল, নীলের গুঁড়ো দিয়ে নীল নারায়ণ পুতুল, আর অপরাজিতা পাতা বাটা দিয়ে সবুজ কুবের পুতুল । কলার পেটোতে সেই পুতুল তিনটিরই আসলে পূজো হয় ঐদিন । আর একটি কলার পেটোতে মাথা থেকে আঁচড়ানো চুলের নুড়ি, একটু গোবর আর একটা ভাঙা মোমবাতি রেখে তৈরী হয় অলক্ষী । চাটাই পিটিয়ে, মোমবাতি জ্বেলে অলক্ষীকে বাড়ির বাইরে বের করে পূজো করে, লক্ষী, নারায়ণ আর ধনপতি কুবেরকে শাঁখ বাজিয়ে বরণ করে প্রতিষ্ঠা করা হয় ।
চাটাই বাজাতে বাজাতে বলা হয়,
"অলক্ষ্মী বিদেয় হোক, ঘরের লক্ষ্মী ঘরেই থাক্'
আসলে কুললক্ষ্মী তথা ভাগ্যলক্ষ্মীর পুজো এই দীপাণ্বিতা লক্ষ্মীপুজো। সূর্যাস্তের আগেভাগে প্রদোষকালে হয় অলক্ষ্মীর পুজো। তারপর শুরু হয় দীপাণ্বিতা লক্ষ্মীর পুজো। ব্রতকথা অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানলাম ঈশ্বর, মানুষ, পুজোআর্চা এসবকিছুই তো মানুষের মনগড়া। এই অনুষঙ্গগুলি জীবনযাপনের উপলক্ষ্যমাত্র। উপযুক্ত চেষ্টা এবং ভাগ্যের জোরে মানুষের সংসারে শ্রীবৃদ্ধি হয়। যাকে আমরা বলি লক্ষ্মীর আগমন। তাই ভাগ্যলক্ষ্মীকে বরণ করা হয় দীপাণ্বিতার দিনে।

কোন মন্তব্য নেই: