১৭ নভেম্বর, ২০১৭

ঘুম গেছিলাম গত দীপাবলিতে। প্রত্যন্ত চা বাগান তামসাং  টি-রিট্রিটের বাঙালি ম্যানেজার এই ধানী লঙ্কার দানা দিয়েছিলেন। এদ্দিনে সেই লঙ্কা আমার যত্নে। প্রথমে গাছের তেজ দেখে মালুম হয়নি।  এখন বুঝছি ভরা পোয়াতির কি তেজ! বিয়োতে না বিয়োতেই দাপট! দিদা বলত, " যেমন তেমন মেয়ে বিয়োব, বয়েস কালে তেজ দেখাব"

 প্রচন্ড ঝাল আর ঝাঁজ এই লঙ্কায়।তবে একে ধানী বলেনা পরে জেনেছি।  ঠিক বাঙালী মেয়ের মত। রূপে না গুণে ভোলায়, মিছরির ছুরিতে নয় শুধুই গন্ধে, ঝালের মাত্রা ছাড়িয়ে কাজ সারে।
বেশী ফলে না। জৈব সারের মাহাত্ম্য। গোবর,  খোল ভেজানো জল, মাছ ধোয়া জল আর বাকীটা অমিতাভ বচ্চনের অমৃত বচন যারর নাম বিজ্ঞাপন।  অল্প খাব, প্রতি রান্নাপিছু একটি লঙ্কাতেই মাত। অরগ্যানিক লঙ্কা বলে কথা। দুষ্প্রাপ্য।

কোন মন্তব্য নেই: