৮ আগস্ট, ২০১৭

ভাদ্র লক্ষ্মী ভদ্রাবতী আজও পূজিতা

এইসময়, বর্ধমান সমাচার ৭ই আগষ্ট ২০১৭ 

দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলার মত বর্ধমানেও বেশ কিছু স্থানে ভাদ্রমাসের প্রথম দিন থেকে ভাদু পূজা আরাম্ভ হয় ।পয়লা ভাদ্র কুমারী মেয়েরা গ্রামের কোন বাড়ীর কুলুঙ্গী বা প্রকোষ্ঠ পরিষ্কার করে ভাদু প্রতিষ্ঠা করে । একটি পাত্রে ফুল রেখে ভাদুর বিমূর্ত রূপ কল্পনা করে তারা সমবেত কন্ঠে ভাদু গীত গায় । ভাদু এদের আঞ্চলিক লৌকিক দেবী। কেউ বলে ভাদু লক্ষ্মী। ভাদ্র সংক্রান্তির সাত দিন আগে ভাদুর মূর্তি ঘরে এনে সংক্রান্তির সকালে দলবদ্ধভাবে ভাদু মূর্তির বিসর্জন দেয়। ভাদ্রমাসের জল থৈ থৈ দিনগুলোতে এখানে এখনো প্রত্যন্ত গ্রামে শোনা যায় ভাদু গান। আদিবাসী ঘরে ঘরে পালিত হয় ভাদু পরব।

এখনো আদিবাসী মানুষদের মুখে মুখে ফেরে বিখ্যাত আঞ্চলিক ভাদুগান

খিরই নদীর কুল ভাইঙ্গেছে
ভাদু নাকি আইস্যেছে
হাতে তার পানের বাটা
রুমালটি যার ভাঁইসেছে। 

কুমারী ভাদু দেবীর কাহিনি ঠিক যেন রূপকথা। সে ছিল এক দুঃখিনী কন্যা ।

মানভূমের পঞ্চকোট রাজ্যে তখন রাজা নীলমণি সিংদেও রাজত্ব করছেন দাপিয়ে। কোনও সন্তানাদি নেই তাঁর। মনে খুব দুঃখ। এদিকে রাজা তখন ঐ অঞ্চলে নতুন প্রজাতির এক ধান চাষ নিয়ে মত্ত। ধানের নাম দিয়েছেন তিনি নিজেই "ভাদুই' । ভাদ্র মাসে বোনা হয় সেই ধান। নিজের রাজ্য কাশীপুরের মানুষের জন্য বিগলিত প্রাণ রাজার। মানুষ ধন্য ধন্য করে।রাজা নিজেই মন্ত্রীকে সঙ্গে করে সাধারণ বেশভূষায় গ্রাম পর্যটনে বেরিয়ে পড়েন। ঐ ভাদুই ধানের ব্যাপারে গ্রামের মানুষের প্রতিক্রিয়া জানতে। ধানের ফলন আরো কি করে বাড়ানো যায়, ঐ ধান মানুষের পছন্দ হয়েছে কিনা এইসব তথ্য সংগ্রহের জন্য। এর মাঝে  তাঁর এক প্রজা রাজত্বের সীমানার মধ্যেই এক গ্রামে গ্রাম প্রধানের ঘরে বেড়ে ওঠা এক পরমাসুন্দরী সুলক্ষণা কন্যা ভদ্রাবতীর (মতান্তরে ভদ্রেশ্বরী) সন্ধান দিল। নিঃসন্তান রাজা সেই শোনামাত্র কন্যাটিকে চাইলেন নিজের কন্যা রূপে পালন করবেন বলে। কিন্তু মেয়েটির পিতা গ্রামের মুখিয়া কিছুতেই রাজি নন। অবশেষে স্থির হল সেই মেয়েটি তাঁর নিজের ঘরেই থাকবে তবে রাজা তার জন্য রাজকুমারীর মত সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য দেবেন আর নিজের কন্যারূপেই দেখবেন তাকে।নিজের পিতার ঘরেই  রাজকন্যার মত বড় হতে লাগলেন ভদ্রাবতী। ভদ্রাবতীর আদরের নাম ভাদুমণি।

এদিকে সারা দেশে তখন সিপাহী বিদ্রোহের ঝড় বইছে। রাজা নীলমণি সিংদেও ব্রিটিশ সৈন্যদের হাতে বন্দী । জেল থেকে ফিরে এসে শুনলেন রাজকন্যা ভদ্রাবতী নাকি কবিরাজের পুত্রের প্রেমে পাগলিনী। কে এই কবিরাজ? কি তার নাম, ধাম? অবশেষে খোঁজ মিলল। তার নাম অঞ্জন।
এবার কালে কালে লোককথা, এক প্রজন্ম থেকে আর এক প্রজন্মে লোকগাথাতে পরিবর্তিত হতে থাকে যুগ যুগ ধরে। স্থানীয় মানুষের মুখে মুখে ফেরে সেই রূপকথা।

ঘটনা শুনে  অগ্নিশর্মা রাজা নীলমণি সিংদেও তড়িঘড়ি আদেশ দিলেন কবিরাজ পুত্র অঞ্জনকে বন্দী করার। দুঃখে, অপমানে ভদ্রাবতী তাঁর দুই সখীকে নিয়ে রাজ্যের সমস্ত বন্দীশালায় গান গেয়ে গেয়ে ঘুরে বেড়াতে লাগল যাতে তার গান শুনে অঞ্জন তাকে চিনতে পারে । এবার সেই গান শুনে রাজারও অনুশোচনা হল, তিনি অঞ্জনকে মুক্তি দিলেন বটে কিন্তু ততদিনে রাজকন্যা ভদ্রাবতী নিজের মনোকষ্টে কোথায় যেন চিরদিনের মত অন্তর্হিত। কেউ বলে সে আত্মহত্যার পথ বেছেছিল। কেউ বলে সে পালিয়ে গেছিল। সেই থেকেই রাজকন্যা ভদ্রাবতীর মূর্তি স্থাপন করে শুরু হল রাজার রাজত্বে ভদ্রাবতীর পুজো আর এই পুজোই পরে গ্রামে গ্রামে ভাদু পুজো বা ভাদু পরব নামে পরিচিতি লাভ করে। আর তার দুঃখে দুঃখী হয়েই ভাদুর বারমাস্যা কীর্তন করে মেয়েরা। তাঁকে আনা হয় আদর করে, পুজো করা হয় আদর করে। তুমি থাক আমাদের মাঝে, আর চলে যেওনা তোমার প্রেমিকের খোঁজে দূর- দুরান্তরে। আমরা তোমায় যতন করে রাখব আমাদের মাঝে।

ওদিকে আবার পশ্চিমবাংলার ঘটিদের রীতি অনুযায়ী ভাদ্রমাসেই শুক্লাষষ্ঠী তিথিতে চাপড়া বা চর্পটা ষষ্ঠীর ব্রত পালন করেন এ অঞ্চলের মায়েরা।

বর্ষার জল পেয়ে ফুলে ফেঁপে ওঠা ভাদ্রের নদনদী, খালবিলে যখন দুএকটা করে পদ্ম ফুটতে সবেমাত্র শুরু করেছে, বাতাসে যখন পুজো পুজো গন্ধ নিয়ে শিউলি ঝরতে শুরু করেছে তখন হয় চাপড়া ষষ্ঠী বা চপটা ষষ্ঠী । দুর্গা ষষ্ঠীর ঠিক একমাস আগে । কাঁঠালী কলা, পিটুলী গোলা দিয়ে পুতুল বানিয়ে পুকুরে ভাসায় গ্রামের মায়েরা, সন্তানের কল্যাণে । আর মটর ডালের চাপড়া বানিয়ে তাওয়ায় সেঁকে মায়েদের খেতে হয় ।

কোনো একদেশে এক বণিক ছিলেন যার তিন পুত্র ও তাদের তিন বৌ ছিল । বৌয়েরা পুত্রবতীও ছিল সকলে । কিন্তু পক্ষপাতিত্বের কারণে বণিক গিন্নী ছোট বৌকেই বেশি ভালবাসতেন । ভাদ্রমাসের শুক্লপক্ষে চাপড়া ষষ্ঠীর জন্য ছোটবৌমা'কে বণিক গিন্নী একফালি পুকুর কাটিয়ে দিলেন । কিন্তু গভীর করে পুকুর খনন করলেও সেখানে একফোঁটাও জল উঠলনা । বণিক আর গিন্নী তা দেখে অবাক হলেন । উপোস করে সারাদিন রাত পড়ে র‌ইলেন ।

অবশেষে মা ষষ্ঠী স্বপ্ন দিয়ে গিন্নীকে বললেন যে এক‌ই ঘরে ছোটবৌয়ের জন্য পুকুর কাটা হল আর বাকী দুটি বৌয়ের প্রতি এমন অসম আচরণ করার কারণে তিনি ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়েছেন তাই পুকুর শুষ্ক । আর বণিক যেন অন্য বৌদের জন্য আরো দুটি পুকুর কাটিয়ে দেন তবেই এই দুটি পুকুর সহ আগেরটিতেও জল থৈ থৈ করে উঠবে । সেই স্বপ্নাদেশ পাওয়া মাত্রই  বণিক লোক-লস্কর ডেকে  আগের পুকুরের পাশে আরো দুটি পুকুর কাটালেন  আর ঠিক সময়মত তিনপুকুরেই কাঁচের মত জল থৈ থৈ করে উঠল । বণিক গিন্নী তিন বৌমাকে নিয়ে ঐ পুকুরের জলে পিটুলীবাটার পুতুল ভাসিয়ে পুজো আচ্ছা করে ষষ্ঠীর ব্রত পালন করলেন ।  ভাদ্রে ওঠা নতুন ধানে ভাদ্র লক্ষ্মীর পাশাপাশি এই চাপড়া ষষ্ঠীর পুজো এখনো সমাদৃত।

কোন মন্তব্য নেই: