৭ নভেম্বর, ২০১০

"লালমাটির পথে পাঁচ সতীপিঠ "

দৈনিক স্টেটসম্যান ৭ই নভেম্বর ২০১০, রবিবারের ক্রোড়পত্র বিচিত্রায়  ভ্রমণ কাহিনী
"লালমাটির পথে পাঁচ সতীপিঠ "  


১৯১৪ সালে পূজোর ছুটির পর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর গয়া থেকে বেলা যাবার পথে রেলওয়ে ওয়েটিংরুমে বসে লিখলেন পথের গান
"পান্থ তুমি পান্থজনের সখা হে,
পথে চলাই সেই তো তোমায় পাওয়া
যাত্রাপথের আনন্দগান যে গাহে
তারি কন্ঠে তোমারি গান গাওয়া"
রবীন্দ্রনাথের স্মৃতিবিজড়িত বীরভূম-রাঙামাটির অমোঘ আকর্ষণে বেশ কয়েকবার পা বাড়িয়েছি । কখনো বিদায়ী ফাগুণের ভোরে, কখনো শ্রাবণী পূর্ণিমার মেঘমালাদের সঙ্গী করে, কিম্বা শীতের অলস দুপুরে |শেষ বসন্তের রেশ নিয়ে চোখঝলসানো চৈতী আগুণই হোক বা পৌষালির কনকনানি কাঁপুনিই হোক কিম্বা শরতের সোনালী রোদ ঝলমলে আকাশ ; বোলপুরের প্রকৃতির রঙ এক এক সময় এক এক রকম । ফুলের বৈচিত্রে পাতাবাহারের রঙিনতায় গ্রামবাংলার এই রাঙামাটি বোধহয় একসময় কবিগুরুকে আকৃষ্ট করেছিল ।আর শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী না থাকলে সাধারণ মানুষ এই অঞ্চলের প্রতি টান অনুভব করত না । শান্তিনিকেতন-শ্রীনিকেতনের আশপাশগুলিও বুঝি এত জনপ্রিয়তা পেত না । এই লালপাহাড়ির দেশ, রাঙামাটির বেশে আমাদের জন্য সাজিয়ে রেখেছে তার শক্তিপীঠের পাঁচ-পাঁচটি বরণ ডালা ।কিংবদন্তী সতীপীঠের সত্যতা যাচাই করার ধৃষ্টতা আমার নেই তবে যেমন বৌদ্ধধর্মের মহাপুরুষের রেলিকস ও তাকে কেন্দ্র করে স্তূপ তৈরী হয় হিন্দুধর্মের সতীর দেহত্যাগের পর সতীর দেহাবশেষকে কেন্দ্র করে ৫১টি শক্তিপীঠ রয়েছে | আর বীরভূমে রয়েছে এই ৫১ পীঠের পাঁচটি| বীরভূমের এই পাঁচটি সতীপীঠ হল কঙ্কালিতলা, নলহাটি, ফুল্লরা, সাঁইথিয়া আর বক্রেশ্বর ।তারাপীঠও বীরভূমের একটি পুণ্য শক্তিপীঠ কিন্তু এটি সতীপীঠ নয় ।শান্তিনিকেতন ছাড়াও এই পীঠের আকর্ষণে বারবার ছুটে বেরিয়ে যেতে ইচ্ছে করে কোলকাতা থেকে বোলপুরের পথে... "তোমায় নতুন করে পাবো বলে" | দেখা হয়েচে বহুবার চোখ মেলে, তবুও ঘর থেকে দু'পা ফেলেই আবার হাঁটি চেনা পথে, আবার নতুন করে আবিষ্কার করি গ্রামবাংলাকে। সবথেকে ভালো হয় যদি বোলপুর থেকে প্রথমে প্রান্তিক হয়ে কঙ্কালিতলা, তারপর ফুল্লরা ও সাঁইথিয়া দেখে তারাপীঠে গিয়ে রাতে কোনো হোটেলে থাকা যায় । পরদিন সকালে তারাপিঠ মন্দির ঘুরে, পুজো দিয়ে নলহাটি ও সেখান থেকে বক্রেশ্বর দেখে বোলপুরে ফিরে আসুন । যদি সময় থাকে তবে নলহাটি থেকে আকালিপুরও ঘুরে আসা যাবে ।

পথের আকর্ষণে বেরিয়ে পড়ি বারবার, কালের গাড়ি আরোহন করে। লিখে চলি পথের পাঁচালী । দু'চারদিন ছুটি চাই শুধু ।হাওড়া থেকে গণদেবতা, শান্তিনিকেতন এক্সপ্রেস, শহীদ এক্সপ্রেস,, ইন্টার সিটি এক্সপ্রেস, বিশ্বভারতী এক্সপ্রেস, আর সরাইঘাট এক্সপ্রেস ; এই এতগুলি ভিন্ন সময়ের ট্রেন আছে বোলপুর বা প্রান্তিক পৌঁছবার জন্য । আর কোনো অপরিকল্পিত ছুটির পিকনিক হলে শীতকালে গাড়ি নিয়ে সদলবলে বেরিয়ে পড়লেই হল । শেরশাহ সুরীর মধ্যযুগীয় রাস্তার ওপর ইংরেজ তৈরী করেছিল গ্র্যাণ্ড ট্র্যাঙ্ক রোড এবং সেটিকে এনএইচ-২ আখ্যা দিয়ে ভারত সরকার গোল্ডেন কোয়াড্রিল্যাটারালের কোলকাতা দিল্লী শাখা তৈরী করে।
স্বর্ণালী-চতুর্ভুজ-সড়ক-যোজনার সার্থকতায় ভ্রমণের আনন্দ ছাপিয়ে যায়। মনে হয় কে বলে বাংলা আমার নি:স্ব? মানুষ রীতিমত টোল ট্যাক্স দিয়ে গাড়িতে ভ্রমণ করছে এখন । ধন্যবাদ বিশ্বায়ন ! ন্যাশানাল হাইওয়ে অথরিটি অফ ইন্ডিয়া(NHAI) মেন্টেন্যান্স করছে ! ধন্যবাদ NHAI ! চারলেনের রাস্তায় স্রোতের মত নিয়ম মেনে গাড়ি চলছে ঠিক বিদেশের মত ; মাঝখানের ডিভাইডারে দৃষ্টিনন্দন বোগন-ভোলিয়া, করবী আর কলকে ফুলের বাতাসীয়া দোলা দেখে কৃতজ্ঞতা জানাই NHAI ইঞ্জিনিয়ারের রুচিশীলতাকে । গাড়িতে যাবার কথা বললাম এই কারণে । আর বললাম এভাবে গেলে কোনো প্ল্যান ছাড়াই বেরোনো যায় । ট্রেনের টিকিট কাটা, স্টেশন যাওয়া, সময় মত ট্রেন ধরার হ্যাপা নেই । আর ব্যস্ততার জীবনে হঠাত মনে করলেই বেরিয়ে পড়া যায় এইসব কাছে পিঠের জায়গায় । কোলকাতা থেকে গাড়ি করে গেলে বোলপুর পৌঁছতে সময় লাগে মাত্র সাড়ে তিন ঘন্টা । ভোর ভোর বেরুলে অনেক বার ঘন্টা তিনেকের মধ্যেও পৌঁছে গেছি ।  মাঝে শক্তিগড়ে দাঁড়িয়ে প্রাতরাশ সেরে নেওয়া যায় গরম কচুরি আর চা দিয়ে । এন এইচ-২ ধরে সোজা যেতে হবে পানাগড় অবধি|পানাগড়ের ভাঙা ট্রাকের সারি পেরিয়ে তারপর ডান দিকে পানাগড়-মোরগ্রাম হাইওয়ের বাঁকে ঘুরে, অজয় নদী পেরিয়ে পেরোতে হয় শাল ইউক্যালিপটাসের জঙ্গল | ইলামবাজারের ঘন জঙ্গলমহল | পথের সাথী সকালের মিষ্টিরোদ এসে পড়ে তখন শালবনের মাথায়, কচি সবুজপাতায় ।চেনাপথ যেন আরো নবীন সজীবতায় ভরে ওঠে । বৃক্ষরাজির এভ্যিনিউ সুসজ্জিত গভীর অরণ্যের করিডোর |শিল্পায়নে ব্রতী হয়ে আমরা "অরণ্যমেধ" যজ্ঞে সামিল হয়েছি তবুও বাংলার সবুজ এখনো যা আছে তা অনেক রাজ্যের ঈর্ষা আর আমাদের গর্ব | তারপরেই কবিগুরুর কর্মভূমিতে, ছাতিম, শিমূল, পলাশের শহর শান্তিনিকেতনে। শ্র্রীনিকেতন, বিশ্বভারতীর আশ্রম পেরিয়ে রতনপল্লী, বনপুলক, শ্যামবাটি, তালতোড়কে সরিয়ে রেখে দুপুর সূর্যকে মাথায় নিয়ে বোলপুর বা প্রান্তিক পৌঁছে সেরে নেওয়া যেতে পারে দুপুরের খাওয়া।বোলপুর বা প্রান্তিকে অনেক হোটেলে আছে থাকার ব্যাবস্থা। কলকাতা থেকে বুক করে এলেই হল ।
শ্যামবাটির মোড়ে সেচ দপ্তরের ক্যানালের জল বয়ে চলেছে । ভরাবর্ষায় এই জলের অমোঘ আকর্ষণ আমাকে আরো টানে। প্রতি শনিবারে ক্যানালের ধারে খোয়াইয়ের হাট বসে । এটি আর কোথাও দেখিনি। সূর্যাস্তের ঠিক ঘন্টা দুয়েক আগে থেকে বসে এই হাট। কত শিল্পীরা নিজ নিজ শিল্পের পসরা সাজিয়ে বসেন সেখানে আর সাথে থাকে বাউলের গান । রাঙামাটির পথ ধরে আমরাও পৌঁছে যাই সেখানে । ডোকরার গয়না, কত রকম ফলের বীজ দিয়ে তৈরী গয়না, কাঁথার কাজের বাহার, পটশিল্প, বাউলগানের আনুষাঙ্গিক বাদ্যযন্ত্র, তালপাতা, পোড়ামাটির কাজ, বাটিকের কাজ আরো কত কিছু এনে তারা বিক্রি করে । কিন্তু অন্ধকার হবার পূর্বমূহুর্তেই পাততাড়ি গোটাতে হয় তাদের । সোনাঝুরির ছায়ায় প্রান্তিকের বনবীথি যেন ঘুরে ফিরে নতুন করে ধরা দেয় আমার কাছে। প্রান্তিকের অনতিদূরে বোলপুর থেকে ৯কিমি দূরে বোলপুর-লাভপুর রোডের ওপর কংকালিতলায় মাকালীর মন্দিরের আকর্ষণও দুর্নিবার । দক্ষযজ্ঞের সময় সতীর খন্ড দেহাংশের কাঁখাল অর্থাত কোমরের অংশ বিশেষ পতিত হয় এখানে ...একটি কুন্ডে। আর পাশে উত্তরমুখে প্রবাহিনী কোপাই নদী সংলগ্ন এলাকায় শ্শ্মশান । আমি এই জায়গায় এলে কিছু মাহাত্ম্য অনুভব করি।কঙ্কালিতলার মায়ের মন্দিরের সামনেই রুরু-ভৈরব শিবের মন্দির । অগণিত বাউলের গানের মূর্ছনায় জমজমাট কঙ্কালিতলার প্রাঙ্গণ । ঐ পথেই অনেক দূর এগুলেই পড়বে ময়ূরাক্ষী নদীর সমতলে তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মস্থান লাভপুর যার অনতিদূরে অবস্থিত ফুল্লরা বা সতীপীঠ অট্টহাস । এখানে সতীমায়ের অধর ওষ্ঠ পড়েছিল । মন্দিরের পাশে বিরাট পুকুর । কথিত আছে রামচন্দ্র যখন দুর্গাপুজো করেছিলেন তখন হনুমান ১০৮টি নীলপদ্ম এই পুকুর থেকে সংগ্রহ করে দিয়েছিলেন রামচন্দ্রের পূজার জন্য । অট্টহাসে দেবী ফুল্লরার ভৈরব হলেন বিশ্বেশ ।সেখান থেকে ঘুরে আসা যায় অপর একটি পীঠ সাঁইথিয়া যেখানে সতীর গলার গহনা পড়েছিল । সাঁইথিয়ার নন্দীকেশ্বরী মায়ের অপর নাম নন্দিনী ।ভৈরব হলেন নন্দীকেশর । সাঁইথিয়া স্টেশন থেকে দেড় কিমি দূরে এই মন্দির ।এরপর রামপুরহাট থেকে ৬কিমি দূরে দ্বারকা নদীর ধারে তারাপীঠও ঘুরে আসা যেতে পারে । একদিকে কিংবদন্তীর সাধক বশিষ্ঠ মুনির তপস্যায় আর অন্যদিকে ইতিহাস খ্যাত সাধক বামাখ্যাপার তন্ত্রসাধনায় "তারাপীঠ" আজ একটি জাগ্রত পীঠ । বামাখ্যাপা তারাপীঠের মহাশ্মশানে তন্ত্র সাধনা করে তারামায়ের দর্শন পেয়েছিলেন । ভোর চারটের সময় তারাপীঠের মন্দির খোলে ।রাতে এখানে একটি হোটেলে থেকে, ভোরে পুজো দিয়ে মন্দির দর্শন করে চা জলখাবার খেয়ে পরদিন বেরিয়ে পড়া যেতে পারে পানাগড়-মোরগ্রাম হাইওয়ের ধারে নলহাটির পথে যেখানে সতীপীঠ "নলহাটেশ্বরী"র মন্দির । এখানে সতীমায়ের গলার নলী বা ভোকাল কর্ড পতিত হয় ।ছোট্ট টিলার ওপরে রাণি ভবানীর তৈরী নলাটেশ্বরী মন্দির রামপুরহাট থেকে ১৬কিমি দূরে এবং শান্তিনিকেতন থেকে ৯১ কিমি দূরে । নলাটেশ্বরী দেবীর নাম কালিকা আর তাঁর ভৈরব হলেন যোগেশ । সেখানে সকালে পৌঁছে গেলে মায়ের ভোগের ব্যাবস্থাও পাওয়া যায় । পানাগড়- মোরগ্রাম হাইওয়ের থেকে বেরিয়ে ঘুরে আসা যায় বক্রেশ্বরে যেখানে সতীর "মন" পড়েছিল । বক্রেশ্বর নদীর ওপর "নীল-নির্জন" ড্যাম যা একটি ট্যুরিষ্ট স্পটও বটে | এই জলাধারটি বক্রেশ্বর তাপবিদ্যুত কেন্দ্রের জল সরবরাহ করে । এবার আসি বক্রেশ্বরের মাহাত্ম্যে । সত্যযুগে লক্ষ্মী-নারায়ণের বিবাহের সময় ইন্দ্র সুব্রত নামে এক মুনিকে ভীষণ অপমান করেছিলেন । যার ফলে সেই সুব্রত মুনির শরীরে আটটি ভয়ংকর ভাঁজ পড়ে যার জন্য তার নাম হয় "অষ্টাবক্র" মুনি । এই অষ্টাবক্র মুনি বহুদিন শিবের তপস্যা করার পর শিবের আশীর্বাদে মুক্তি পান । তাই এই বক্রেশ্বর শিব খুব জাগ্রত । এখানে দশটি উষ্ণ প্রস্রবণ আছে যাদের জল গড়ে ৬৫ থেকে ৬৬ডিগ্রি সেলসিয়াস । সতীর "মন" বা ভ্রুযুগলের মধ্যবর্তী অংশ পতিত হয় । আপাত অনাড়ম্বর মহিষমর্দিনি মায়ের মন্দিরে দাঁড়ালে বেশ ছমছমে অনুভূতি হয় । আর সাথে বক্রেশ্বরের শিবমন্দিরটিও দেখে ঘোরা যায় । কত প্রাচীন এইসব মন্দির তা মন্দিরের চেহারা দেখলেই বোঝা যায় । বক্রেশ্বরের উষ্ণপ্রস্রবণে স্নানের ব্যাবস্থাও আছে । সেখান থেকে সময় থাকলে যাত্রা করা যায় আকালিপুর ভদ্রপুরের উদ্দেশ্যে । এটি রামপুরহাট থেকে ২৫কিমি দূরে । মহারাজা নন্দকুমারের প্রতিষ্ঠিত কালীমন্দির আছে এখানে ।
অসাধারণ সুন্দর এই ছয়কোণা মন্দিরের স্থাপত্য । আর সুন্দর প্রতিমার বিগ্রহ । আকালীপুর যাওয়ার পথে পড়বে "একচক্রাগ্রাম" যেখানে নিত্যানন্দ মহাপ্রভুর জন্মস্থান । কথিত আছে মহাভারতের পান্ডবরা তাদের অজ্ঞাতবাসের সময় এখানে কিছুদিন বাস করেছিলেন ।
কেন্দুলি এবং নানুর এই দুটি জায়গার জন্যও বীরভূম প্রসিদ্ধ। গীতগোবিন্দের রচয়িতা জয়দেবের জন্মস্থান কেন্দুবিল্ব বা কেঁদুলি আর বৈষ্ণবপদাবলীর রচয়িতা চন্ডীদাসের জন্মস্থান নানুর । শান্তিনিকেতন থেকে মাত্র ১৮ কিমি দূরে অজয় নদী ও ময়ূরাক্ষী নদীর মধ্যবর্তী সমতলে অবস্থিত নানুর । পানাগড় থেকে গেলে ইলামবাজারের একটু পরেই বাঁদিকে ঘুরে কেঁদুলির পথে যাওয়া যায়।মকর-সংক্রান্তির সময় বিরাট মেলা বসে কেঁদুলিতে ।গ্রামবাংলার চালার অনুকরণে তৈরী অত্যন্ত সুন্দর সব মন্দিরের হাট এই কেঁদুলি | অপূর্ব সুন্দর টেরাকোটার ভাস্কর্যের রাধাবিনোদ মন্দির যা আবারো মনে করিয়ে দেয় গ্রামবাংলার ঐতিহ্যকে, পোড়ামাটির নিখুঁত স্থাপত্যে রামায়ণের কাহিনী লিপিবদ্ধ করা আছে মন্দিরের গায়ে ।
কাজেই শুধু বিশ্বভারতী পৌষমেলা বা বসন্ত উতসব নয় পুজোর ঠিক পরথেকেই রাঙামাটির বাতাসে থাকে মৃদু ঠান্ডার স্পর্শ যার রেশ চলে বসন্তের শেষ অবধি । ঐসময়গুলি বাদ দিলেও ক্ষতি নেই । নিরিবিলিতে আর শান্তিতে ঘুরে আসা যায় দর্শনীয় স্থানগুলি । তিন থেকে চারটি দিন বার করে নিলে একটু আরামে দেখা যায় সব ক'টি জায়গা । আর কোলকাতার এত কাছে এতগুলি জায়গা থাকতে পুজোর পর মনখারাপ কাটাতে সস্তায় ঘুরে আসা যেতেই পারে বোলপুর ।আর যদি উইকএন্ডে যান তবে ভুলে যাবেন না যেন শনিবারের খোয়াই হাটের কথা |
ফুলেদের সাথে কথা বলে, পাখিদের সাথে গান গেয়ে যাই । আর খবর নিয়ে যাই সবুজ আর নীলের | ভালো থাকতে বলি , বেঁচে থাকতে বলি বাউলকে আর মনের একতারায় বেঁধে নিয়ে যাই বাউলের দোতারার সুর |আবার আসি ফিরে গ্রামছাড়া ঐ রাঙামাটির পথের ধূলায় সতী মায়ের আশীর্বাদ নিয়ে ।

1 টি মন্তব্য:

Ushnish Ghosh বলেছেন...

Dear Indira
Thank you so much for this posting. Ek Nish-shash-e po-De felam.:-).
Santiniketan amar sosur BaDi..tai kato bar je gechhi...khub bhalo la-ge amar..I dont know why..abar jabo sig-giri...
Amar Blog-e ekta chhotto train clip achhe.." To ranga matir desh.. I am sure you will like it.
Bhalo theko
Ushnishda