৯ মে, ২০১০

রবি পক্ষে-কবি প্রণাম

-->
                              (সত্যজিত রায়ের আঁকা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্কেচ )

সীমার মাঝে অসীম তুমি আমাদের এক রবি
তোমার গানে তুমি হ'লে সুরলোকের কবি ।
তোমার তুলির টানে তুমি আঁকলে ছন্দে ছবি
তোমার সুরে, অগ্নিবীণায় মূর্ত হ'ল রবি ।
আজি এ প্রভাতে রবির কিরণে,
প্রণমি তোমারে এই শুভ দিনে।
বেল জুঁই রজনীগন্ধায় ঢাকা তোমার মুখ !
কি প্রশান্তি দু'আঁখিতে তব, দেখি হয়ে উন্মুখ !
আজ তুমি নেই সাথে, বাণী রেখে গেছ পথে আমাদেরই তরে,
আজি শুভ দিনে, আমরা হাজির তোমায় প্রণাম করে।
পটেলিখা ছবি তুমি চির সমাদৃত আজ |
রূপে-রসে-রঙে টলোমলো, গোলাপের মতো সাজ!
শুনি তব পদক্ষেপ নির্জন সৈকত উপকূলে বসি,
এসেছিলে ধরাধামে কোন এক নক্ষত্র খসি |
ধন্য জীবন তোমার ধন্য ইহলোক,
সুরের ঝর্ণাধারায় প্লাবিত তোমার আলোক।
দিবস রজনী সাহিত্যের মহা আনন্দ ভোজ,
পঙতি ভোজনে আপ্যায়িত মোরা চেটেপুটে খাই রোজ |


শৈশবে মেঘের কোলে রোদের খেলায় বাদল যখন টুটি
ছোট্ট আমি নাচের তালে তারা হ'য়ে যেন ফুটি।
কৈশোরে তুমি সুরের গুরু দাও গো সুরে দীক্ষা,
তোমার গানে তোমার ছন্দে শুরু সংগীত শিক্ষা।
যৌবনে তুমি প্রেমের কবি আমার পরাণ যাহা চায়,
সে ছাড়া মোর কেহ নাহি আর আছে যেন এ ধরায়।
বিয়ের পরে অবগুন্ঠন খুলি, ভালোবাসি ভালোবাসি,
যাকে পেলাম তাকে নিয়ে তোমার সুরে বাজাই বাঁশি।
প্রৌঢ়ে আমার, তোমার সাথে বেলা যে যায় সাঁঝবেলাতে,
তোমার সুরে গানের ভেলায় ছন্দের দোলাতে।
বার্ধক্যের বারাণসীতে দেখি কি বিপুল তরঙ্গ!
উদ্বেলিত গগনে মোর পাখা ঢাকে বিহঙ্গ ।
আমার প্রাণে জাগালে তুমি সুরছন্দের দোলা
গানে কাব্যে মন ভরিয়ে সারাদিন করি খেলা।


আজ এ প্রভাতে শুভ ২৫শে বৈশাখ
পুনর্জন্ম হোক তোমার এই মোর অভিলাষ।
তোমার মন্দিরে আরতি করি
তুমি ফিরে এস নব রূপ ধরি।
বিকশিত কর অন্তর মম তোমারই নতুন গানে
বন্দিত হোক চরণ তোমার আমারই পুষ্পস্নানে।
নতুন নতুন গল্পগুচ্ছে কথা কাহিনীর সৃষ্টিতে
স্নাত হোক ধরা তোমার মুক্ত ঝর্ণাধারার বৃষ্টিতে

কোন মন্তব্য নেই: