৩ মে, ২০০৮

সোনার তরীর রূপোর পালে লাগল কিসের হাওয়া



দুইটি বছর পথ চললাম সোনার তরীর দাঁড় বেয়ে,
ঘাত প্রতিঘাত টানা পোড়েনের জীবন তরীর পথ দিয়ে।
যেদিন প্রথম পেলাম খবর প্রন্তিকের এই আবাসনের,
ছুটলাম ট্রেনে দেখতে সেথায় কেমন ই বা হবে তা কে জানে।
কংকালীতলার অনতিদূরে জনহীন ধূধূ প্রান্তরে,
রবিঠাকুরের স্মৃতি বিজড়িত লোকালয় ছেড়ে বেশ দূরে।
ক্যানালের জল বয়ে যায় পাশে সবুজ আর নীলে আছে মিলে মিশে,
তার ই পিছনেতে আমার আবাস এলো লটারীর কৃপাতে।
পোড়া মাটিতে নাম লেখা হল আমার কৃষ্ঞকলির,
বীণাপাণি তার পাশে আছে আর আছে যে সোনাঝুরি।
গোলাপ বন আর সোনাঝুরি ঘেরা রাস্তার দুই ধার,
যেখানে কুণ্ডলিনী আর চাঁদের হাটে সব মিলে মিশে একাকার।
শুধু বলি তুমি সুন্দর থাক আর সবুজ হয়ে যেও,
শুকিয়ে যেওনা মরুভূমি হয়ে ফুলে ফেঁপে ওঠ পরিণত হয়ে ,
ঝকঝকে তরতাজা হয়ে গিয়ে বেঁচে থাক শত পরমায়ু নিয়ে সোনার তরীটি হয়ে।

.....................................................................................................
সোনার তরী দুর্গোত্সব কমিটির দ্বারা প্রকাশিত "স্মরণিকা" ২০০৪ (আবির্ভাব সংখ্যা)

কোন মন্তব্য নেই: